চা শিল্পের উৎপাদন বাড়লেও বদলাচ্ছেনা শ্রমিকের জীবন

জয়নাল আরেদীন,কমলগঞ্জ :::
সর্বশেষ মৌসুমে বাংলাদেশে চা উৎপাদনের ১৬৫ বছরের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উৎপাদনের রেকর্ড গড়েছে। চায়ের সদ্য সমাপ্ত মৌসুমে চা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭ কোটি ২৩ লাখ কেজি। তবে এ মৌসুমে চা উৎপাদিত হয়েছে ৮ কোটি ২০ লাখ কেজি যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে উৎপাদন ৯৭ লাখ কেজি বেশি। চা শিল্পের উৎপাদন বাড়লেও বদলাচ্ছেনা চা শ্রমিকদের জীবন।

সারাদিন কাজের পর একজন চা শ্রমিকের আয় হয় ১০২ টাকা, নেই নিজস্ব নৃতাত্ত্বিক জাতিগত পরিচয়, লেখাপড়ার সুযোগ, স্যানিটেশন ও চিকিৎসার। শিক্ষিত হলেও ১০২ টাকায় নির্দিষ্ট কাজ করতে হয় না হয় হারাতে হয় মাথা রাখার জায়গা। কাজ করতে গিয়ে অঙ্গহানী ঘটলেও কোনো সাহায্যের ভাতা। নিজের অধিকার নিয়ে যেন সোচ্চার না হতে পারে মালিকপক্ষের সহযোগিতায় নেশার ঘোরে রাখা হয় শ্রমিকদের। পরিকল্পিতভাবে প্রতিটি চা বাগানে রয়েছে মদের দোকান।

শমশেরনগর চা বাগানের চা শ্রমিক মেনকা সাওতাল বলেন, স্বাধীনতার এত বছর পেরিয়ে গেলেও চা বাগানের শ্রমিকদের ভাগ্যের কোনো পরিবর্তন হয়নি আজও। উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি তাদের জীবনযাত্রায়। এমনকি মৌলিক অধিকারও তারা ভোগ করার সুযোগ পাচ্ছেন না। চা বাগানের এই জনগোষ্ঠী এখনও ব্রিটিশ সামন্তবাদ আর স্থানীয় বাবু-সাহেবদের বেড়াজাল ছিন্ন করতে পারেনি।

চা শ্রমিক ইউনিয়নের সূত্রমতে, দেশে চা জনগোষ্ঠী প্রায় ৭ লাখ। তার মধ্যে নিবন্ধিত শ্রমিক প্রায় ৯৪ হাজার, অনিয়মিত শ্রমিক প্রায় ৪০ হাজার। একজন চা শ্রমিকের সাপ্তাহিক বেতন ৭১৪ টাকা। সপ্তাহে দেয়া হয় ৩ কেজি ২৭০ গ্রাম চাল বা আটা বাজার দর হিসেবে যে পণ্যের দাম কম।

দেওরাছড়া চা বাগানের চা শ্রমিক বৃটিশ ঘাটুয়াল বলেন, ৫-৬ সদস্যের অনেক পরিবার রয়েছে যেখানে ১ জন কাজ পাচ্ছে বাকিরা এই ১০২ টাকার উপর নির্ভর করেই দিন কাঠছে। ছোট ভাঙাচোরা ঘরে থাকতে হয় গবাদি পশুসহ সন্তানদের নিয়ে। বাগান কর্তৃপক্ষের ঘর মেরামত করে দেয়ার কথা থাকলেও তা হয় না বছরের পর বছর। তাদের নেই নিজস্ব কোনো জায়গা।

সিলেট চা জনগোষ্ঠী ছাত্র যুব কল্যাণ পরিষদের সাধারন সম্পাদক সুজিত বাড়াইক বলেন, ২০১৬ সালের চুক্তি অনুসারে একজন শ্রমিককে অবসর ভাতা হিসেবে সে যত বছর কাজ করেছে তার মোট বছরের গড়ে দেড় মাসের বেতন হিসেবে পেনশন দেয়ার কথা। কিন্তু সেটা শুধু কাগজে কলমে। বৃদ্ধ বয়সে পরিবারের বোঝা হয়ে অর্ধাহার অনাহারে বিনা চিকিৎসায় মরতে হয় তাদের। মাত্র কয়েকটি বাগানে নামমাত্র চিকিৎসা সেবা দেয়া হলেও বেশিরভাগ বাগানে সেটা নেই।

বিশ^বিদ্যালয় চা ছাত্র সংসদের সহ-সভাপতি দেবাশীষ যাদব বলেন, এত কষ্টের মাঝেও সব থেকে বেশি কষ্ট দেয় যখন সমাজের বিরাট অংশ বলে আমরা ভারতীয়। যখন বঙ্গে আসেন তখন ভারতবর্ষ ভাগ হয়নি শুধু একজায়গা থেকে অন্য জায়গায় গেছেন। সবারই নিজস্ব জাতি পরিচয় থাকলেও চা শ্রমিকের সেটা নেই, নিজস্ব ভাষা সংস্কৃতি থাকলেও কোনো স্বীকৃতি এখনও আদায় করতে পারেননি।

চা শ্রমিক ইউনিয়নের মনু ধলাই ভ্যালির সভাপতি ধনা বাউরি বলেন, আমাদের কষ্টের কথা বলে শেষ করা যাবে না। নিজেদের ভালো মন্দ বুঝে শ্রমিকরা যেন ঐক্যবদ্ধ না হতে পারে সেজন্য মালিক পক্ষের পরক্ষ সহযোগিতায় মদের সহজ প্রাপ্যতা নিশ্চিত করে তাদের মাতাল করে রাখা হচ্ছে।

স্বপ্নকুঁড়ি সমাজ কল্যাণ সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বিজয় রুদ্র পাল বলেন, একজন চা শ্রমিক বাগানে কাজ না করলে তাকে বাগানে থাকতে দেয়া হয় না অথচ প্রতিটি বাগানে নি¤œমানের মদের দোকান আছে যাদেরকে কোনো কাজ ছাড়াই থাকার জন্য জায়গাসহ সব ধরনের সুযোগ করে দিচ্ছে বাগানের মালিক পক্ষ।

বাংলাদেশ চা সংসদ সিলেট ভ্যালির সভাপতি জি এম শিবলী বলেন, চা শ্রমিকদের জীবন মান উন্নয়নের জন্য কাজ চলছে। প্রতিটি বাগানে প্রাথমিক স্কুল স্থাপন করা হচ্ছে। চা শ্রমিক দিবসের ইতিহাস

পঞ্চদশ ও ষোড়শ শতাব্দীতে চীন ছাড়া পৃথিবীর অন্য কোথাও চায়ের প্রচলন ছিল না। ১৮৫৪ সালে পরীক্ষামূলক ভাবে সিলেটের মালিনীছড়া চা বাগানে চা চাষ শুরু করে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি। সে সময় চা বাগান তৈরির জন্য ভারতের আসাম, উড়িষ্যা, বিহার, উত্তর প্রদেশসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রমিকদের একই ভুখন্ডের জায়গা স্থানান্তর করা হয়।

‘গাছ হিলেগা, রুপিয়া মিলেগা’(গাছ নড়লে টাকা মিলবে) এমন প্রলোভনে শ্রমিকরা নিয়ে এলেও তাদের যে প্রলোভন দেখিয়ে নিয়ে আসা হয়েছে সেই ভুল বঝুতে বেশি সময় লাগেনি। বিশাল পাহাড় পরিষ্কার করে চা বাগান করতে গিয়ে হিং¯্র পশুর কবলে পড়ে কত শ্রমিকের জীবন অকালে চলে গেছে তার কোনো হিসেব নেই।

ব্রিটিশদের অত্যাচারসহ তাদের অব্যাহত নির্যাতনের প্রতিবাদে তৎকালীন চা শ্রমিক নেতা পন্ডিত গঙ্গাচরণ দীক্ষিত ও পন্ডিত দেওসরন ‘মুল্লুকে চল’(মাতৃভমিতে ফিরে যাবার) আন্দোলনের ডাক দেন। ১৯২১ সালের ২০ মে সিলেট অঞ্চলের প্রায় ৩০ হাজার চা শ্রমিক সিলেট থেকে পায়ে হেটে চাঁদপুর মেঘনা স্টিমার ঘাটে পৌঁছান।

সেখানে তারা জাহাজে চড়ে নিজ দেশে ফিরে যেতে চাইলে ব্রিটিশ গোর্খা বাহিনীর সৈনিকরা নির্বিচারে গুলি চালিয়ে চা শ্রমিককে হত্যা করে মেঘনা নদীতে লাশ ভাসিয়ে দেয়। যারা পালিয়ে এসেছিলেন তাদেরকেও আন্দোলন করার অপরাধে পাশবিক নির্যাতনের শিকার হতে হয়। পায়নি তারা ভূমির অধিকার।

এরপর থেকেই প্রতি বছর ২০ মে চা শ্রমিক দিবস হিসেবে দিনটি পালন করে আসছেন নাগরিক সুবিধা বঞ্চিত শোষণ বঞ্চনা ও বৈশম্যের শিকার চা শ্রমিকরা। চা বাগানের নাট্য সুনিল বিশ^াস বলেন, রাষ্ট্রীয় ভাবে চা শ্রমিক দিবসটি পালকের স্বীকৃতি চেয়ে আজো উপেক্ষিত হয়ে আছি।

  •  
শেয়ার করুন